শিক্ষা-মেধা –মনন উৎকর্ষের প্রাণকেন্দ্র
নওহাটা মহিলা ডিগ্রী কলেজ

একটা সুন্দর চেতনা জন্ম দিতে পারে একটি অনাবিল সুন্দর ভবিষ্যৎ। মানুষের অসংখ্য ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সুন্দর চেতনার সমন্বয়ে সৃষ্টি হয়েছে মানবসমাজ –শিল্প-সংস্কৃতির । তারই সৃজনশীল পরস্পরায় আজও বয়ে চলেছে মানব কল্যাণের কীর্তিময়তা । অনুরুপভাবে কালের পরিক্রমায় অমরকীর্তি নওহাটা মহিলা ডিগ্রী কলেজটিও রাজশাহী জেলার পবা থানার অন্তর্গত নওহাটা পৌরসভার উচ্চশিক্ষিত ও প্রতিভাময় একদল যুবকের স্বপ্ন এবং অত্র অঞ্চলের অসংখ্য শিক্ষানুরাগী মানুষের শুভ চেতনার দীপ্ত প্রখর স্বাক্ষর । রাজশাহী জেলার শিক্ষা –মেধা-মননের উৎকর্ষ সাধনের এক উ্জ্জ্বল দৃষ্টান্ত এ কলেজ । উল্লেখ্য যে নওহাটা পৌরসভায় প্রায় ৮০ হাজার লোকের বাস এবং শিক্ষার হার প্রায় ৮৫%। এখানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বেশ কিছু সরকারি-বেসরকারি পাবলিক প্রতিষ্ঠান । ফলে অতি শিঘ্রই নওহাটা পৌরসভা একটি পূর্ণাঙ্গ শিক্ষা নগরীতি রুপ লাভ করে এবং এই অঞ্চলের মানুষের আধুনিক জীবন যাত্রার মান উন্নয়নে সহায়ক ভুমিকা রাখে। এক সময় এই বিশাল জনসংখ্যার অনুপাতে পর্যাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছিল না। এর ফলে প্রতি বছর অসংখ্য নারীর শিক্ষা জীবনের অবসান ঘটতো। সেই সাথে সম্ভাবনাময় অসংখ্য মেধার অপমৃত্যু হতো। এছাড়া অভিভাবকগন উচ্চ নারীশিক্ষা সংক্রান্ত কুসংস্কার ও ভীতি জনিত কারনে মেয়েদের নিজ অঞ্চলের বাইরে শিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী হতেন না। এমনকি অত্র পৌরসভার বাইরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবস্থান ও আর্থিক সংকটের কারণে নারীরা শিক্ষা গ্রহণ করতে পারতো না । শুধু তাই নয়? সামাজিক অবক্ষয়ের ফলে দুর্বৃত্তদের কারণে কোনো কমবাইন্ড কলেজ এ অঞ্চলের মেয়েরা নিরাপদে নির্বিঘ্নে লেখাপড়া করতে পারতো না । অভিভাবকগণ এই সকল দুশ্চিন্তার কথা ভেবে মেয়েদের উচ্চশিক্ষা গ্রহন না করিয়ে অল্প বয়সে বাল্য বিবাহ দিতে বাধ্য হতো । কিন্ত প্রযুক্তি নির্ভর সমাজ বর্তমান বিশ্বে মানুষ এখন বুঝতে পেরেছে নারী শিক্ষার গুরুত্ব; দিনবদলের পালায় পুরনো ধ্যান-ধারণা, গোঁড়ামী, কুসংস্কারের খোলস থেকে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছে। প্রযুক্তি নির্ভর সমাজ ও দেশ গড়ে তুলতে হলে নারীশিক্ষার কোন বিকল্প নেই। কেননা শিক্ষিত নারীসমাজই শিক্ষিত জাতির সুতিকাগৃহ। বাস্ববতার নিরিখে উপলদ্ধ নারীরা আজ আর পিছিয়ে নেই পুরুষের পাশাপাশি সকল কাজের অংশিদারিত্বে সমাজ যোগ্যতা রেখে চলেছে। একদিকে আধুনিক জনজীবনের বণিলতা অন্যদিকে নারী সমাজকে সমস্যা ও নিরসন বিষয়কে ও কেন্দ্র করে শিক্ষাবান্ধব এ অঞ্চলের শিক্ষিত বিদ্যোৎসাহী, সমাজসেবক উচ্চ পর্যায়ের সরকারি-বেসরকারি ব্যক্তিবর্গ নারীশিক্ষাকে যুগোপযোগী করে তরান্বিত করতে স্বতন্ত্র্য নারীশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। তারই ফলশ্রুতিতে ১৯৯৬ সালে পবা উপজেলায় একমাত্র স্বনামধন্য নওহাটা মহিলা ডিগ্রী কলেজটি প্রতিষ্ঠিত হয়। যা সময়ের দাবিতে নারীশিক্ষার প্রাণকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

কলেজর অবকাঠামো

সুবিশাল তোরণ বিশিষ্ট কলেজ অবকাঠামোগত অবস্থান দর্শনীয়। ছায়াঘেরা মনোরম পরিবেশে কলেজের ৩টি ভবন রয়েছে
১। ১মভবন: চারতলা বিশিষ্ট, ১৬টি শ্রেণি কক্ষ রয়েছে।
২। ২য় ভবন :তিনতলা বিশিষ্ট, ১৫ টি শ্রেণি কক্ষ রয়েছে।
৩। ৩য় ভবন :দ্বিতল বিশিষ্ট, ০৮ টি শ্রেণি কক্ষ রয়েছে।
৪। এছাড়া শিক্ষা সংক্রান্ত যা রয়েছে তা হলো -১টি শিক্ষক মিলনায়তন ১টি সমৃদ্ধ লাইব্রেরি , ৩টি বিজ্ঞানাগার, ২টি কম্পিউটার ল্যাব (৪০ টি কম্পিউটার রয়েছে) প্রজেক্টর ক্লাসরুম ৩টি সেমিনার কক্ষ ,১টি ছাত্রী কমন রুম।
৫। কলেজ ক্যাম্পাস সুপ্রাচীর দ্বারা পরিবেষ্টিত ও সংরক্ষিত

কলেজ শিক্ষা কার্যক্রম

উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায় :
(ক) বিজ্ঞান বিভাগ আসন -১৫০
(খ) বাণিজ্য বিভাগ আসন -১৫০
(গ) মানবিক বিভাগ আসন -১৫০
ডিগ্রী পাসকোর কোর্স :
(ক) বি এ
(খ) বিএসএস
(গ) বিবিএস
(ঘ) বিএসসি
অনার্স কোর্স :
(ক) সমাজ বিজ্ঞান ,রাষ্ট্রবিজ্ঞান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি
(খ) বাংলা ও ব্যবস্থাপনা (প্রক্রিয়াধীন)

যাদের অবদানে নওহাটা মহিলা ডিগ্রী কলেজ ঋদ্ধ

মোঃ মেরাজ উদ্দিন মোল্লা
সাবেক এমপি, পবা মোহনপুর, রাজশাহী-৩
মোঃ আব্দুল গফুর সরকার
সাবেক মেয়র, নওহাটা পৌরসভা
মোঃ মকবুল হোসেন
মেয়র, নওহাটা পৌরসভা
মোঃ আব্দুল কুদ্দুস শেখ
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, নওহাটা
মোঃ সিরাজ উদ্দিন মিয়া
সহকারী শিক্ষক ও সাবেক চেয়ারম্যান, বড়গাছী ইউনিয়ন
মোঃ মোবারক আলী সরকার
সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী
মোহাম্মদ মহসীন আলী
সাবেক মেম্বার, নওহাটা ইউনিয়ন
মোঃ রফি উদ্দিন বিশ্বাস
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক, নওহাটা
মোঃ ওয়াজেদ আলী
সেকশন অফিসার, শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহী
শ্রী প্রভাত কুমার মন্ডল
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, নওহাটা
মোঃ আনছার আলী
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, নওহাটা
মোঃ আশরাফ আলী দেওয়ান
সাবেক অধ্যক্ষ, নওহাটা ডিগ্রী কলেজ
ডাক্তার তবিবুর রহমান শেখ
সি এম ও, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
মোঃ আবুল কাশেম
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, নওহাটা
মোঃ ইলিয়াছ আহমেদ
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, নওহাটা
মোঃ আব্দুল আজিজ খান
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, নওহাটা

অধ্যক্ষের বাণী

একটি সুন্দর চিত্র চেতনা করে দিতে পারে একটি অনাবিল সুন্দর ভবিষ্যৎ। মানুষের অসংখ্য ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সুন্দর চেতনার সমন্বয়ে মানবসম্পদ শিল্প সংস্কৃতির। তার সৃজনশীল পরস্পরায় আজও করে চলেছে মানব কল্যাণের কৃতিময়তা।